জাতে ব্যবসায়ী, কর্মে মানবিকতার অসাধারণ উদাহরণ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আর্থিক কারণে সারাবজিৎ সিংকে পঞ্চম শ্রেণির পর স্কুল ছাড়তে হয়। কিন্তু আজ তিনি 43 বছর বয়সে, হিমাচল প্রদেশের  ‘ববি ভেলা’ নামের এক অতিজনপ্রিয় পরিচিত মানুষ। সাধারন মানুষ তাকে কখনও দেখতে পান মৃতদেহ বহনকারী গাড়ি চালাতে আবার কখনও স্বেচ্ছায় রক্তদান ক্যাম্প চালাতে। আবার অনেক সময়  এঁনাকে আঞ্চলিক ক্যান্সার হাসপাতালের রোগীদের পরিচর্যা বিনামূল্যে করতে দেখা যায়।

পেশায় তিনি ব্যবসায়ী হলেও, মানুষের সেবার জন্য সব সময় এগিয়ে থাকেন। সারাবজিৎ সিংকে আমরা উভয়ের সান্ত্বনা: জীবিত বা মৃত মানুষের সাহায্যকারী হাত বলতে পারি।  

সারাবজিৎ সিংকে অনেকেই ‘ববি ভেলা’ বলে ডাকে। ‘ভেলা’ শব্দের পাঞ্জাবিতে অর্থ হল, যে মানুষের হাতে কিছু নেই কিন্তু সময় আছে অনেক অনেক অচেনা অজানা মানুষের সেবা করার জন্য। আর এই শব্দের সত্যটা সারাবজিৎ সিং সত্যি করে দেখিয়েছেন। যেখানে এখন মানুষ সবাই নিজের কাজে ব্যস্ত, সেখানে দাঁড়িয়ে আজকের দিনে সারাবজিৎ সিং সামাজিক সেবার জন্য সময় ই সময় আছে। তিনি খুব খুশি যে তিনি মানবতার সেবা করার জন্য সময় বের করতে পারেন।

স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে সারাবজিৎ সিং তার কাজ শুরু করেন প্রায় ১২ বছর আগে। যিনি স্থানীয় এনজিও’র সাথে গুরুদুয়ারার সাথে জড়িত ছিলেন এবং তাদের রক্তদান ক্যাম্পের আয়োজন করতে সাহায্য করতেন। কিন্তু এই সংগঠন ধীরে ধীরে তাদের পরিচালনা বন্ধ করে দেয় এবং সারাবজিৎ  চালিয়ে যেতে চায়।

“সারা রাজ্য থেকে মানুষ চিকিত্সার জন্য রাজধানী শহর শিমলা আসেন। সিমলা-ইন্দিরা গান্ধী মেডিকেল কলেজ এবং কামলা নেহেরুর হাসপাতালের প্রধান হাসপাতালগুলিতে রক্তের ঘাটতি সবসময়ই থাকে। তাই আমি এই রোগীদের সাহায্য করার জন্য রক্তদান ক্যাম্প চালিয়ে যাওয়ার প্রয়োজন অনুভব করেছি এবং আমার নিজের মতো একই রক্তদান ক্যাম্প স্থাপন করা শুরু করেছি “,সারাবজিৎ সিং

তিনি গত 1২ বছরে রক্তদান ক্যাম্প পরিচালনা করছেন এবং 30,000 ইউনিট রক্ত ​​সংগ্রহ করেছেন, যা হিমালয় প্রদেশের মোট রক্ত ​​সংগ্রহের 60%। সারাবজিৎ সিং প্রত্যেক রবিবার কমলা নেহরুর হাসপাতাল ও ইন্দিরা গান্ধী হাসপাতালে রক্তদান ক্যাম্প আয়োজন করেন। শিমলার সব হাসপাতাল জরুরী অবস্থায় তাকেই কল করে।

10 বছর আগে সারাবজিৎ সিং তার শেষকৃত্য সম্পন্ন ভ্যান পরিষেবা শুরু করেছিলেন।

তাছাড়া “Donate eyes before dying. My mother donated it,” তিনি মানুষকে অঙ্গ দান করার জন্য উৎসাহ দিয়েছেন।

পড়ে ভালো লাগল? খবরটি কেমন লাগল আমাদের জানান banglabuzz1234@gmail.com এ। আপনার আশেপাশের জানা-অজানা খবর শেয়ার করুন banglabuzz1234@gmail.com এ।
আমাদের ফেসবুক পেজ লাইক করার জন্য পাশের লিঙ্ককে ক্লিক করুন Facebook

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Comments: 0

Your email address will not be published. Required fields are marked with *